ইখলাস

শয়তানের গুরুতর অপরাধ সমূহ -আব্দুস শহীদ নাসিম

Alorpath 5 months ago Views:230

সে বলে: মানুষকে সাজদা করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়, যাকে তুমি সৃষ্টি করেছ শুকনো ঠনঠনে পঁচা মাটি থেকে।


আদম (আঃ) কে সেজদা করার ব্যাপারে আল্লাহর হুকুম অমান্য করে শয়তান তার মর্যাদার আসনে থেকে এমন সব গুরুতর অপরাধ করে বসলো, যা চরম অমার্জনীয় ও ক্ষমাহীন। তার গুরুতর অপরাধ সমূহ হলো:

১. সে আল্লাহর হুকুম পালন করতে অস্বীকার করে।

২. সে অহংকার, দাম্ভিকতা ও হটকারিতা প্রদর্শন করে: "সে আল্লাহর আদেশ পালন করতে অস্বীকার করে, অহংকার, দাম্ভিকতা, হটকারিতা প্রদর্শন করে।" (সূরা বাকারা: আয়াত ৩৪)


৩. সে আল্লাহর হুকুম অমান্য করে সীমালংঘন করে এবং অবাধ্য হয়: "সে তার প্রভুর হুকুম অমান্য করে সীমা লংঘন করে।" (সূরা কাহাফ: আয়াত ৫০)

৪. সে নিজেই নিজেকে শ্রেষ্ঠ বলে ঘোষণা করে: "সে বলে: আমি তার (আদমের) চাইতে শ্রেষ্ঠ।" (সূরা আ'রাফ: আয়াত ১২)

৫. সে অনুশোচনা করেনি; বরং নিজের হঠকারিতার পক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করে: "সে বলে: আমি কি এমন একজনকে সাজদা করবো, যাকে তুমি সৃষ্টি করেছো কাদামাটি থেকে? (সূরা ইসরা: আয়াত ৬১)

নিজের অবাধ্যতার পক্ষে সে যুক্তি প্রদর্শন করে: "তুমি আমাকে সৃষ্টি করেছ আগুন থেকে আর তাকে সৃষ্টি করেছে কাদামাটি থেকে।" (সূরা আ'রাফ: আয়াত ১২)

"সে বলে: মানুষকে সাজদা করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়, যাকে তুমি সৃষ্টি করেছ শুকনো ঠনঠনে পঁচা মাটি থেকে।" (সূরা আল হিজর: আয়াত ৩৩)

৬. সে আল্লাহর হুকুমের বিপক্ষে যুক্তি বুদ্ধি প্রয়োগ করে: আল্লামা ইবনে জারির তাবারি এবং আল্লামা ইবনে কাছির তাঁদের তাফসীরে উল্লেখ করেন, প্রখ্যাত তাবেই মুফাসসির হাসান বসরী রহঃ বলেছেন: "ইবলিশ তার যুক্তি বুদ্ধি প্রয়োগ করে (নিজেকে শ্রেষ্ঠ ধারণা করে) এবং ইবলিশই সর্বপ্রথম দলিলের বিপক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করে।”

আরো পড়ুন- বিশুদ্ধ ঈমানের গুরুত্ব- ডঃ খন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর

প্রখ্যাত তাবেয়ী ইবনে সীরিন বলেন: "(দলিল-প্রমাণের বিপক্ষে) সর্বপ্রথম যুক্তি বুদ্ধি প্রয়োগকারী হলো ইবলিশ।আর যুক্তি বুদ্ধি প্রয়োগ করেই লোকেরা চন্দ্র-সূর্যের উপাসনা করে।”

আল্লামা ইবনে কাছির বলেন: "এভাবে দলিল-প্রমাণের বিপক্ষে ইবলিশ তার ভ্রান্ত যুক্তি বুদ্ধি প্রয়োগ করে।”

৭. সে কুফুরির পথকে আঁকড়ে ধরে: শয়তান ফেরেশতাদের সাথে অবস্থান করে ভালোভাবেই এই জ্ঞান অর্জন করেছিল যে আল্লাহর হুকুম অমান্য করা মানেই কুফুরি।

ফলে সে জেনে বুঝেই কুফুরির পথ অবলম্বন করে: "তবে সাজদা করেনি ইবলিশ। সে হটকারিতা প্রদর্শন করে এবং কাফিরদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়।" (সূরা সোয়াদ: আয়াত ৭৮)

৮. সে নিজের ভ্রষ্টতার জন্য আল্লাহকে দায়ী করে: শয়তানের সবচেয়ে বড়, জঘন্য ও ঘোরতর অপরাধ হলো, সে যে উপরোক্ত অপরাধ গুলো সংঘটিত করে ভ্রষ্টতার পথ অবলম্বন করলো, এজন্য সে নিজের অপরাধ স্বীকার না করে আল্লাহকে দায়ী করে (নাউজুবিল্লাহ): "সে বলে, যেহেতু তুমি আমাকে ভ্রষ্টতা ও ধ্বংসের পথে ঠেলে দিয়েছো, সে জন্যে আমিও এখন থেকে তাদের (আদম সন্তানদের) বিপথগামী করার জন্য তোমার সিরাতুল মুস্তাকিম-এ ওঁৎ পেতে বসে থাকবো। (সূরা আ'রাফ: আয়াত ১৬)

আল্লাহ তা'আলা যেন আমাদের সবাইকে শয়তানের ধোঁকা থেকে বাঁচার তৌফিক দান করেন। আমিন।



মন্তব্য